সুনীল ছেত্রীর ১৫ বছর, আন্তর্জাতিক ফুটবলে ১০০ ম্যাচের মালিক

সুনীল ছেত্রীর ১৫ বছর

জাস্ট দুনিয়া ব্যুরো: সুনীল ছেত্রীর ১৫ বছর কেটে গেল আন্তর্জাতিক ফুটবলে। ভারতের জার্সিতে ভাইচুং ভুটিয়ার পর তিনিই ছিলেন একমাত্র নাম। তারকা হয়ে উঠেছিলেন নিজের গুনেই। একটার পর একটা গোল, দেশের জার্সিতে চূড়ান্ত সফল সুনীল একটা সময় ছাঁপিয়ে গিয়েছিলেন ভাইচুংকে। তুলনায় উঠে এসেছে লিওনেল মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডোর নামও। ভারতীয় ফুটবলের মুখ হয়ে উঠেছেন ক্রমশ। আগামী ১২ জুন আন্তর্জাতিক ফুটবলে ১৫ বছর পূরণ করবেন সুনীল।

ছোট্ট-খাট্ট ছেলেটা যখন ভারতীয় ফুটবলে পা রেখেছিলেন তখন সবার প্রশ্ন ছিল তাঁর শারীরিক উচ্চতা নিয়ে। অনেকেই প্রশ্ন তুল‌েছিলেন এই উচ্চতা নিয়ে স্ট্রাইকার? কিন্তু সবাইকে ভুল প্রমান করে তিনি ক্রমশ ভারতীয় ফুটবলে নিজের জায়গা তৈরি করেছেন এবং সেরা স্ট্রাইকার হয়ে উঠেছেন। নতুন প্রজন্মের স্ট্রাইকারদের কাছে তিনিই শ্রেষ্ঠ উদাহরণ।

ক্লাব ফুটবলে শুরু করেছিলেন ২০০২-এ মোহনবাগান ক্লাব দিয়ে। ২০০৫ পর্যন্ত মোহনাবাগানে খেলার পর চলে গিয়েছিলেন জেসিটিতে। সেখানে তিন বছর খেলার পর এক বছর ইস্টবেঙ্গল ও এক বছর ডেম্পোতে খেলে ২০১০-এ পা বাঁড়ান বিদেশি ফুটবলে। মেজর লিগ সকার ক্লাব কানসাস সিটিতে এক বছরই ছিলেন কিন্তু একটিও ম্যাচ খেলেননি। সেখান থেকে ফিরে যোগ দেন চিরাগ ইউনাইটেডে। এক বছর চিরাগ ইউনাইডেডে কাটানোর পর এক বছরের জন্য আবার কেরিয়ারের প্রথম ক্লাব মোহনবাগানে এক বছর খেলেন (২০১১-১২)।

(এই সংক্রান্ত আরও খবর পড়তে ক্লিক করুন এই লিঙ্কে)

দেখুন সুনীল ছেত্রীর কিছু সেরা গোল

২০১২-১৩তে চলে যান পর্তুগালের ক্লাব স্পোর্টিং সিপিতে। সেখানেও মাত্র তিনটি ম্যাচই খেলার সুযোগ পান। এর পর চার্চিল ব্রাদার্সে এক বছর কাটিয়ে যোগ দেন দেশের নবাগত এবং সব থেকে পেশাদার ক্লাব বেঙ্গালুরু এফসিতে। সেখান থেকে লোনে খেলেন আইএসএল ক্লাব মুম্বই সিটিতে। আপাতত তিনি বেঙ্গালুরু এফসির একনিষ্ঠ ফুটবলার। ক্লাব ফুটবলে তাঁর পা থেকে এসেছে ১৩৯টি গোল।

(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)

ভারতের যুব ফুটবল দলে বেশিদিন খেলতে হয়নি সুনীলকে। ২০০৪-এ অনূর্ধ্ব-২০ জাতীয় দলের হয়ে তিন ম্যাচে দুটো গোল করা সুনীল ছেত্রী ২১০০৫-এই যোগ দেন ভারতীয় সিনিয়র দলে। সেই থেকে চলছে আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাঁকে। দেশের জার্সিতে খেলে ফেলেছেন ১০০ ম্যাচ। তাঁর ১০০তম ম্যাচ দেখতে ভেঙে পড়েছিল গোটা মুম্বই। করেছেন ৭২টি গোল।