ISL 8, NEUFC vs ATKMB: কোচ বদলেই জয়ে ফিরল কলকাতার দল

ISL 8, NEUFC vs ATKMB

জাস্ট দুনিয়া ডেস্ক: হুগো বুমৌস ফর্মে ফিরতেই বোধ হয় মেজাজও বদলে গেল এটিকে মোহনবাগান শিবিরের। চার ম্যাচে জয়হীন থাকার পরে জয়ে ফিরল দল। মঙ্গলবার ফতোরদার জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামে নর্থইস্ট ইউনাইটেড এফসি-কে ৩-২-এ হারিয়ে চলতি লিগের তিন নম্বরে উঠে এল সবুজ-মেরুন বাহিনী   (ISL 8, NEUFC vs ATKMB )। হুগো বুমৌস ফর্মে ফিরে দলকে উপহার দিলেন জোড়া গোল। তাঁর দু’গোল ও লিস্টন কোলাসোর অসাধারণ হেডে করা গোলই এ দিন জয় এনে দেয় কলকাতার দলকে। এ দিন ডাগ আউটে ছিলেন তাদের নতুন কোচ হুয়ান ফেরান্দো। তাঁর পজেশন ও পাস নির্ভর ফুটবলের কৌশল মাঠে প্রয়োগ করে সাফল্যে ফিরল সবুজ-মেরুন শিবির।

ম্যাচের দু’মিনিটের মাথায় গোল করে অবশ্য এ দিন দলকে এগিয়ে দিয়েছিলেন নর্থইস্টের কেরালিয়ান ফরোয়ার্ড ভিপি সুহের। সেই গোল কোলাসো শোধ করেন প্রথমার্ধের একেবারে শেষ মিনিটে। দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণের ঝড় বইয়ে দেয় সবুজ-মেরুন বাহিনী। সারা ম্যাচে যতগুলো সুযোগ পায় তারা, তার অর্ধেক কাজে লাগাতে পারলেও এ দিন অন্তত পাঁচ গোল পেত তারা। সারা ম্যাচে আটটি শট গোলে রেখেও তিনটির বেশি গোল পাননি তারা। মনবীর সিং একাধিক গোলের সুযোগ নষ্ট করেন। এই জয়ের ফলে সাত ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবলে সাত থেকে পাঁচ নম্বরে উঠে এল এটিকে মোহনবাগান। অন্য দিকে, আট ম্যাচে সাত পয়েন্ট-সহ নয় নম্বরেই রয়ে গেল লিগের একমাত্র ভারতীয় কোচের অধীনস্থ দল নর্থইস্ট ইউানাইটেড এফসি।

মঙ্গলবার দলে মাত্র একটি পরিবর্তন করে মাঠে নামে এটিকে মোহনবাগান। জনি কাউকোর জায়গায় প্রথম এগারোয় আসেন কার্ল ম্যাকহিউ। শুধু রয় কৃষ্ণাকে সামনে রেখে ও তাঁর পিছনে লিস্টন কোলাসো, হুগো বুমৌস ও মনবীর সিংকে রেখে ৪-২-৩-১-এ দল সাজান তাঁদের নতুন কোচ হুয়ান ফেরান্দো। অন্য দিকে, তিন ভারতীয় ফরোয়ার্ডে শুরু করা নর্থইস্ট এ দিনও জামাইকান ফরোয়ার্ড দেশর্ন ব্রাউনকে পায়নি। দুই বিদেশি মিডফিল্ডার খাসা কামারা, হারনান সান্তানা ও অস্ট্রেলীয় ডিফেন্ডার প্যাট্রিক ফ্লোটম্যান— এই তিন বিদেশিকে নিয়ে প্রথম ১১ নামান ভারতীয় কোচ খালিদ জামিল।

শুরুতেই কর্নার কিক থেকে হেডে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন জামিলের দলের নির্ভরযোগ্য ফরোয়ার্ড ভিপি সুহের। শুরুতেই গোল খাওয়ার পরে নড়েচড়ে বসে এটিকে মোহনবাগান। বিরতিতে যাওয়ার মিনিট খানেক আগে কোলাসোর অসাধারণ হেডে সমতা এনে ফেলে এটিকে মোহনবাগান। মিরশাদের একটি মিসকিক থেকে বল পেয়ে রয় কৃষ্ণা বক্সের বাইরে ডানদিক থেকে লম্বা হাওয়ায় ভাসানো সেন্টার করেন বক্সের মধ্যে বাঁ দিকে থাকা অরক্ষিত কোলাসোকে। মাপা কোণাকুনি হেডে বল জালে জড়িয়ে দিতে ভুল করেননি তিনি। দ্বিতীয় পোস্টের ওপরের কোণ দিয়ে বল ঢুকে যায় গোলে। চলতি লিগে এটি চতুর্থ গোল তাঁর। ম্যাচের সেরার পুরস্কারও তিনিই পান।

টানা আক্রমণের চাপ রাখতে না পেরে বুমৌসের কাছে প্রায় আত্মসমর্পণ করেন নর্থইস্টের ডিফেন্ডাররা। ৫৩ মিনিটের মাথায় বক্সের মধ্যে বাঁ দিক থেকে তাঁকে মাইনাস দেন শুভাশিস বোস এবং সেই বল পেয়েই ঠাণ্ডা মাথায় দুই ডিফেন্ডারকে ধোঁকা দিয়ে সোজাসুজি গোলে বল ঠেলে দেন ফরাসি অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার। ম্যাচের দ্বিতীয় গোলটি পেয়ে যান বুমৌস। ডানদিক দিয়ে ওঠা ফরাসি তারকাকে মাঝমাঠ থেকে বল বাড়িয়েছিলেন জনি কাউকো। নিখুঁত সেই পাস থেকে বল পেয়ে বক্সে ঢুকে ওয়ান টু ওয়ান পরিস্থতিতে গোলে ফের বল ঠেলে দেন বুমৌস। নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ার তিন মিনিট আগে দ্বিতীয় গোলটি পেয়ে যান মাশুর শেরিফ। এই ম্যাচে জয় সবুজ-মেরুন বাহিনীকে ফের প্রথম চারে জায়গা করে দিতে পারে।

এটিকে মোহনবাগান দল: অমরিন্দর সিং (গোল), তিরি, আশুতোষ মেহতা, শুভাশিস বোস, প্রীতম কোটাল (অধি), কার্ল ম্যাকহিউ (জনি কাউকো), দীপক টাঙরি (লেনি রড্রিগেজ), হুগো বুমৌস (ডেভিড উইলিয়ামস), মনবীর সিং, লিস্টন কোলাসো (মাইকেল সুসাইরাজ)রয় কৃষ্ণা।

(তথ্য ও লেখা আইএসএল ওয়েব সাইট থেকে)

প্রতিদিন নজর রাখুন জাস্ট দুনিয়ার খবরে

(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)