চাঁদের গায়ে মরচে ধরেছে! চন্দ্রযান ১-এর মুন মিনারেলজি ম্যাপারে ধরা পড়ল

চাঁদের গায়ে মরচে

জাস্ট দুনিয়া ডেস্ক: চাঁদের গায়ে মরচে ধরা পড়েছে। ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো) ‘চন্দ্রযান ১’ পাঠিয়ে ছিল চাঁদে। ওই চন্দ্রযানের ভিতরে ছিল ‘মুন মিনারেলজি ম্যাপার’ (এম৩)। এই যন্ত্রটি নাসার। সেই ‘মুন মিনারেলজি ম্যাপার থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই একদল মার্কিন বিজ্ঞানী একটি গবেষণাপত্র লিখেছেন। সেই গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে সায়েন্স অ্যাডভান্সেস পত্রিকায়। সেখানেই বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, চাঁদে মেরু অঞ্চলের কাছে লৌহ যৌগ হেমাটাইট রয়েছে, যাকে মরচে বলে।

মরচে আসলে লোহার একটা সাধারণ অক্সাইড। লোহার সঙ্গে অক্সিজেনের জারণে তৈরি হয়। লোহাকে বাতাসে ফেলে রাখলে বাতাসে থাকা জলীয় বাষ্প তার সঙ্গে বিক্রিয়া করে অক্সাইড গঠন করে। এই অক্সাইডই আসলে মরচে। কিন্তু চাঁদের গায়ে মরচে কী ভাবে রয়েছে বা তৈরি হয়েছে, সে ব্যাপারে নির্দিষ্ট কোনও সিদ্ধান্ত জানাতে পারেননি ওই বিজ্ঞানীরা।


বিজ্ঞানের আরও খবরের জন্য ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

নাসার মতে, প্রায় ৪৫০ কোটি বছর আগে অন্য একটি মহাজাগতিক বস্তুর ধাক্কায় পৃথিবী ও সেই বস্তুর খণ্ডিত অংশ জুড়ে চাঁদের সৃষ্টি হয়। চন্দ্রযান১ চাঁদে আগেই জলের সন্ধান দিয়েছিল। চাঁদের মাটিতে লৌহ আকরিকের মতো খনিজের সন্ধানও নতুন নয়। তবে, মরচে মিলল প্রথম বার।

রবীন্দ্রনাথ লিখেছিলেন, এক যে ছিল চাঁদের কোণায় চরকা কাটা বুড়ি/ পুরাণে তার বয়স লেখে সাতশো হাজার কুড়ি। কিন্তু বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, চাঁদের বুড়ির অনেক আগে থেকেই অর্থাৎ বহু কোটি বছর ধরেই চাঁদের গায়ে মরচে পড়ছে।


(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)