দেশ জুড়ে টিকাকরণের গতিতে খুশি প্রধানমন্ত্রী, চাইলেন এনজিও-সাহায্য

দেশ জুড়ে টিকাকরণের গতিতে খুশি প্রধানমন্ত্রীপ্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

জাস্ট দুনিয়া ডেস্ক: দেশ জুড়ে টিকাকরণের গতিতে খুশি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তবে এই গতি ধরে রাখতে তিনি বিভিন্ন অসরকারি সংগঠন (এনজিও)-এর সাহায্য চাইলেন। শনিবার করোনা অতিমারিতে দেশের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে একটি রিভিউ বৈঠকের ডাক দিয়েছিলেন তিনি। সেই বৈঠকে তিনি জানিয়েছেন, দেশ জুড়ে টিকাকরণের কাজে তিনি সন্তুষ্ট। প্রধানমন্ত্রীর অফিস সূত্রে জানানো হয়েছে, টিকাকরণের গতি ধরে রাখতে মোদী এনজিওগুলোর সক্রিয় সহযোগিতা দাবি করেছেন।

এ দিন রাতে প্রধানমন্ত্রীর অফিস (পিএমও) একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে। সেই বিবৃতিতে লেখা হয়েছে, আধিকারিকরা প্রধানমন্ত্রীকে সবিস্তারে দেশের টিকাকরণের কাজ সংক্রান্ত বিষয়ে একটি প্রেজেন্টেশন দিয়েছেন।

বয়স অনুযায়ী কাদের কাদের টিকা দেওয়া হয়েছে, সেই সম্পর্কেও প্রধানমন্ত্রীকে তথ্য জানানো হয়েছে। বিভিন্ন রাজ্যে স্বাস্থ্যকর্মী থেকে শুরু করে সব ধরনের কোভিড যোদ্ধা এবং সাধারণ মানুষের কত শতাংশ টিকা পেয়েছেন, সে ব্যাপারেও অবহিত করা হয়েছে প্রধানমন্ত্রীকে। টিকা প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলো আগামী দিনে কত টিকা সরবরাহ করবে, উৎপাদনের মাত্রাও কতটা বাড়ানো হবে, তা নিয়েও প্রধানমন্ত্রীকে সব তথ্য দেওয়া হয়েছে বলে পিএমও সূত্রে জানানো হয়েছে।

গত ৬ দিনে দেশে অন্তত ৩ কোটি ৭০ লক্ষের বেশি মানুষকে করোনা টিকা দেওয়া হয়েছে। ভারতে যত জনকে করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে, মালয়েশিয়া বা সৌদি আরবের মতো দেশের জনসংখ্যাই তত। এই পরিসংখ্যান শুনে খুশি প্রধানমন্ত্রী। পিএমও সূত্রে জানা গিয়েছে, টিকাকরণের গতি নিয়ে সন্তুষ্ট প্রধানমন্ত্রী। আগামী দিনে এই গতি ধরে রাখার নির্দেশও দিয়েছেন। টিকাকরণের এই উদ্যোগে এনজিওগুলো বিপুল ভাবে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন মোদী।

পাশাপাশি তিনি  মনে করিয়ে দিয়েছেন, দেশের বেশ কয়েকটি রাজ্যে করোনার ডেল্টা স্ট্রেনে আক্রান্ত হয়েছেন অনেকে। এই পরিস্থিতিতে করোনা পরীক্ষার সংখ্যা যেন কোনও মতেই কমানো না হয়। বরং তা বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রদানমন্ত্রী মোদী। রাজ্যগুলির সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করার পরামর্শও দিয়েছেন তিনি।

পিএমও সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রধানমন্ত্রীকে আধিকারিকরা জানিয়েছেন তাঁরা রাজ্যগুলোর সঙ্গে সমন্বয় রেখেই কাজ করছেন। প্রধানমন্ত্রী আধিকারিকদের নির্দেশ দিয়েছেন, কোনও রাজ্যে কোনও ভাবেই যেন করোনা পরীক্ষার সংখ্যা না কমানো হয়। করোনার প্রকোপ কমাতে তার পরীক্ষা একটা বড় অস্ত্র বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী। আধিকারিকরা প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছেন, কো-উইন অ্যাপ নিয়ে গোটা বিশ্ব জুড়েই উৎসাহ বেড়েছে। ভারতে করোনা টিকাকরণের মেরুদণ্ড হচ্ছে এই অ্যাপ। প্রধানমন্ত্রী এ কথা শুনে সবিশেষ খুশি হয়েছেন বলেই পিএমও সূত্রে জানা গিয়েছে।

(প্রতিদিন নজর রাখুন জাস্ট দুনিয়ার খবরে)

(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)