বিজয় মিছিলে নিষেধাজ্ঞা জারি করল নির্বাচন কমিশন, হবে না উৎসব

মোহিত ডি রামের পদত্যাগ

 জাস্ট দুনিয়া ডেস্ক: বিজয় মিছিলে নিষেধাজ্ঞা, বিধানসভা ভোটে যেই জিতুক না কেন উৎসব করা যাবে না। গত দেড় মাস ধরে দেশের পাঁচ রাজ্যে হয়েছে বিধানসভা নির্বাচন। যার ফল ২ মে। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির মধ্যে এই দীর্ঘ ভোট নিয়ে নির্বাচন কমিশনকে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে। তাতেই কিছুটা প্রলেপ লাগাল কমিশন। এর আগে  প্রচার বন্ধ করেছিল তবে তা অনেক দেড়ি করে ততদিনে যা হওয়ার হয়ে গিয়েছে। এবার বিজয় উৎসব নিষিদ্ধ করা হল।

২৭ মার্চ থেকে শুরু হয়েছিল নির্বাচন। শেষ হচ্ছে ২৯ এপ্রিল। নির্বাচন কমিশনের বার্তায় বলা হয়েছে, ‘‘জয়ী প্রার্থীর সঙ্গে দু’জনের বেশি লোককে থাকার অনুমতি দেওয়া হবে না। গননা কেন্দ্র থেকে সংশাপত্র নেওয়ার সময় প্রার্থীর সঙ্গে বা তাঁর মনোনীত কারও সঙ্গে দু’জনের বেশি থাকতে পারবেন না।’’ যদিও এই নিয়ম কতটা মানা হবে প্রার্থীদের তরফে সেটাই বড় কথা। পশ্চিমবঙ্গ ছাড়া অন্যান্য রাজ্যের নির্বাচন অনেক আগেই শেষ হয়ে গিয়েছে। এই কোভিড পরিস্থিতিতে বাংলায় নির্বাচন চলছে আট দফার। যার শেষ দফা এখনও বাকি। সপ্তম দফার ভোট শান্তিপূর্ণভাবেই শেষ হয়েছে।

একদিন আগেই মাদ্রাস হাইকোর্ট তুলোধনা করেছে নির্বাচন কমিশনের ভূমিকাকে। যে ভাবে কোভিডের নিয়ম ভাঙা হয়েছে নির্বাচনে। গননা বন্ধ রাখার কথাও বলা হয় আদালতের তরফে। দেশ জুড়ে যেভাবে মৃত্যু মিছিল চলছে তাতে সঙ্কটে মানুষের জীবন, আর তা নিয়ে ঝুঁকি নিতে চাইছে না কেউই।

সোমবার আদালত নির্বাচন কমিশনের দিকে সরাসরি আঙুল তুলে বলে কোভিড-১৯-এর এই দ্বিতীয় ঢেউ-এর জন্য একা দায়ী নির্বাচন কমিশন। আপনাদের কর্তাদের খুনের দায়ে ধরা করা উচিৎ। আপনারা কী অন্য গ্রহে বাস করছিলেন যখন নির্বাচন প্রচার চলছিল?’’ সছিক কোভিড নিয়ম লাগু করা না হলে ভোট গননা বন্ধ করা হবে বলেও জানানো হয়েছে।

২ মে কেরল, তামিলনাড়ু, পশ্চিমবঙ্গ, অসম ও পুদুচেরিতে নির্বাচনের ফল ঘোষণা। যে রাজ্যে যে রাজনৈতিক দলই জিতুক না কেন রাস্তায় নামতে পারবেন না হাজার হাজার সমর্থক। কিন্তু সেটা কতটা পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রে সম্ভব হবে তা সেদিনই বোঝা যাবে। তবে আট দফার নির্বাচনে বাংলার যা ক্ষতি হওয়ার হয়ে গিয়েছে।

(প্রতিদিন নজর রাখুন জাস্ট দুনিয়ার খবরে)

(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)