মুম্বইয়ের স্টেশনে বোমাতঙ্ক, ছাড় পেল না অমিতাভ বচ্চনের বাড়িও

মুম্বইয়ের স্টেশনে বোমাতঙ্ক

জাস্ট দুনিয়া ডেস্ক: মুম্বইয়ের স্টেশনে বোমাতঙ্ক ঘিরে হঠাৎই বানিজ্য নগরীতে তৈরি হয় চাঞ্চল্য। সেই তালিকায় ছিল তিনটি রেলওয়ে স্টেশন। সঙ্গে অভিনেতা অমিতাভ বচ্চনের বাড়িও। যদিও পুরো বিষয়টিই ছিল ভুয়ো। তবে এই ভুয়ো ফোনের পিছনে বড় কোনও চক্রান্ত রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখছে স্থানীয় পুলিশ। শুক্রবার মধ্যরাতে হঠাৎই মুম্বইয়ের বিভিন্ন জায়গায় বোমা রাখা আছে বলে ফোন যায় পুলিশ কন্ট্রোল রুমে। সেই ব্যক্তি জানান, শহরের চারটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে বোমা লুকিয়ে রাখা হয়েছে।

সেই ৪টি জায়গা হল ছত্রপতি শিবাজি মহারাজ টার্মিনাস (সিএসটি), বাইকুল্লা, দাদার রেলস্টেশন ও অমিতাভ বচ্চনের জুহুর বাংলো। মুম্বইয়ে আতঙ্কবাদী হামলার সময় সবার আগে আক্রমণ করা হয়েছিল সিএসটি স্টেশনে। সেখানকার সব থেকে বড় রেল স্টেশন। দূরপাল্লার প্রচুর ট্রেনের পাশাপাশি প্রতিদিন স্থানীয় প্রচুর মানুষ এই স্টেশন ব্যবহার করেন। এই ফোন পেয়ে সঙ্গে সঙ্গেই তৎপর হয়ে পড়ে পুলিশ। শুরু হয় তল্লাশি। পুলিশের সঙ্গে যোগ দেয় রেল পুলিশ ও বম্ব স্কোয়াড। কিন্তু কিছুই খুঁজে পাওয়া যায়নি।

তবে হালকা ভাবে বিষয়টিকে নিচ্ছে না স্থানীয় প্রশাসন এবং পুলিশ। যে চার জায়গার কথা ভুয়ো ফোনে উল্লেখ করা হয়েছিল সেখানে কিছু খুঁজে পাওয়া না গেলেও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এমনটা অবশ্য নতুন কোনও ঘটনা নয়। এর আগেও এমন ভুয়ো বোমাতঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু কে বা কারা এই ফোন করছে তা জানাটা পুলিশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তার খোঁজই চলছে।  ফোন নম্বর ট্রেস করার চেষ্টা চালাচ্ছে মুম্বই পুলিশ।

মুম্বই বার বার নাশকতার শিকার হয়েছে। এর আগের ভয়ঙ্কর দুটো নাশকতার দগদগে দাগ এখনও রয়েছে ওই শহরের শরীরে। দ্রুত গতীতে ছুটে চলা শহরের আনাচ কানাচ লেগে রয়েছে নানা নাশকতার চিহ্ন। তার মধ্যে অন্যতম ১৯৯৩-এর ধারাবাহিক বিস্ফোরণ। যাতে প্রচুর মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। বাদ যায়নি লোকাল ট্রেনও। তার পর উগ্রপন্থী হামলায় তাতেও কম মানুষের প্রাণ যায়নি। তাই অল্প কিছু আভাস পেলেই মানুষ আঁতকে ওঠে এখনও।

(প্রতিদিন নজর রাখুন জাস্ট দুনিয়ার খবরে)

(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)