কোভিড নিয়ে মোদীর মিটিং, ১ মে থেকে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে টিকা

মোদীর ভার্চুয়াল র‍্যালি

জাস্ট দুনিয়া ডেস্ক: কোভিড নিয়ে মোদীর মিটিং আরও একবার প্রমান করছে দেশ জুড়ে ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পরিস্থিতি কতটা ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে। প্রতিদিন দেশে আক্রান্তের সংখ্যায় রেকর্ড তৈরি করছে। এদিন ১১.৩০-এ মিটিং শুরু হয়। আর তার এক ঘণ্টার মধ্যেই খবর আসে যেদিন থেকে দেশে করনোভাইরাসের প্রথম আক্রমণ শুরু হয়েছিল সেদিন থেকে আজ পর্যন্ত সব রেকর্ডকে ভেঙে দিয়েছে এদিনের আক্রান্তের সংখ্যা। তার পরই ১ মে থেকে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সবাইকে টিকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করে কেন্দ্র সরকার। এ ছাড়া রাজ্যে রাজ্যে টিকার আকাল কমাতে প্রস্তুতকারী সংস্থা থেকে রাজ্য সরকারগুলো সরাসরি ভ্যাকসিন কিনতে পারবে বলেও জানিয়ে দিয়েছে কেন্দ্র সরকার।

এই নিয়ে টানা দু’দিন কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে মিটিং করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি জানিয়েছে, প্রথমবার যে পথে হেঁটে দেশে এই ভাইরাসের সংক্রমণ আটকানো গিয়েছিল সেই পথেই আবার হাঁটতে হবে। সব প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছেন, আরও কঠিন পদক্ষেপ নেওয়ার। যাতে সকলে সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং এবং মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক হয়।

আগের দিন দেশে অক্সিজেনের পরিমান বাড়ানোর কথাও বলেছিলেন মোদী। মহারাষ্ট্র দিল্লি এবং কর্ণাটকের অবস্থা সব থেকে খারাপ। ২৪ ঘণ্টায় এই তিন রাজ্য তাদের সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে। মহারাষ্ট্রে একদিনে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৮,৬৩১ জন। দিল্লিতে সেটা ২৫,৪৬২ জন। কর্ণাটকে সেই পরিমান ১৯,০৬৭ জন।

দিল্লি সরকার গত সপ্তাহে জানিয়েছিল সপ্তাহান্তের কার্ফুতে যাবে তারা। সেই মতো শনি ও রবিবার দিল্লিতে গুরুত্বপূর্ণ সার্ভিস ছাড়া সব বন্ধ রাখা হয়েছিল। তবে সোমবার আক্রান্তের সংখ্যা দেখে প্রশাসনের চোখ কপালে উঠেছে। সঙ্গে সঙ্গে এক সপ্তাহের কার্ফু ঘোষণা করেছে কেজরিওয়াল সরকার। খোলা থাকবে গুরুত্বপূর্ণ সার্ভিস আর সরকারি অফিস। প্রাইভেট অফিসকে ওয়ার্ক ফ্রম করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সব ধরনের জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।  আগেই অডিটোরিয়াম, রেস্টুরেন্ট, মলস, জিম ও স্পা বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। গত বছর দিল্লিতে সম্পূর্ণ লকডাউন হয়েছিল ২২ মার্চ থেকে ১৮ মে পর্যন্ত।  এবার আপাতত পরের সোমবার পর্যন্ত কার্ফু ঘোষণা করা হয়েছে। প্রয়োজন হলে তার সময়সীমা বাড়ানো হবে।

(প্রতিদিন নজর রাখুন জাস্ট দুনিয়ার খবরে)

(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)