প্রবল বৃষ্টিতে নাজেহাল শহর, ভেঙে পড়েছে যাতায়াত ব্যবস্থা, চলবে আরও দু’দিন       

প্রবল বৃষ্টিতে নাজেহাল শহর

জাস্ট দুনিয়া ব্যুরো: প্রবল বৃষ্টিতে নাজেহাল শহর । বুধবারও সকাল থেকেই ছিল আকাশর মুখ ভার। সঙ্গে কোথাও অল্প বৃষ্টি কোথাও বেশি। কিন্তু রাত থেকেই তা ব্যাপক আকাড় নেই। শুরু হয় প্রবল বৃষ্টি। যা চলছে এখনও। ভরা অফিসের দিনে সকাল থেকে প্রবল বৃষ্টিতে সমস্যায় পড়েছে শহর ও শহরতলীর নিত্য অফিস যাত্রীরা। প্রবলল বৃষ্টির জেড়ে লোকাল ট্রেন থেকে মেট্রো, সবই অনিয়মিত চলছে। যাতে আরও বিপদে পড়েছেন যাত্রীরা।

আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস ছিলই মৌসুমী অক্ষরেখার প্রভাবে আগামী তিন দিন দক্ষিণবঙ্গে মাঝারি থেকে ভারি হবে। উত্তরবঙ্গে ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনার কথাও আগাম জানিয়েছিল আবহওয়া দফতর। যে মৌসুমী অক্ষরেখার দাপটে বাংলা জুড়ে এই বৃষ্টির দাপট সেটা বিস্তৃত রয়েছে রাচি, বাঁকুড়া বাংলাদেশ হয়ে আসাম পর্যন্ত।

আরও একটি মৌসুমী অক্ষরেখা এ রাজ্যের সীমানা ঘেঁষে চলে গিয়েছে রাচি ওড়িশা হয়ে উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে। জোড়া অক্ষরেখার জেড়েই তিনদিন ধরে চলবে প্রবল বৃষ্টিয় এখানেই শেষ নয়, আগামী শনিবার থেকে চেপে বসছে আরও একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা। যা ক্রমশ দানা বাঁধছে বঙ্গোপসাগরে। যার কারণে শনিবারের বৃষ্টির পরিমাণ আরও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

চাপের মুখে ট্রেনের সামনে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা

এই প্রবল বৃষ্টিতে শুধু যে ট্রেন চলাচল ব্যহত হয়েছে তা নয়। শহরের বিভিন্ন রাস্তায় তৈরি হয়েছে চূড়ান্ত জানজট। শহরের প্রায় প্রতিটি আন্ডারপাস চলে গিয়েছে জলের তলায়। সেই তালিকায় রয়েছে দমদম, পাতিপুকুরের মতো গুরুত্বপূর্ণ আন্ডারপাস। শোনা যাচ্ছে জল জমেছে মেট্রো রেলের লাইনেও। যার ফলে কমিয়ে দেওয়া হয়েছে মেট্রোর গতি। সমস্যা দেখা দিয়েছে সিগন্যাল ব্যবস্থায়ও। যে কারণে সব স্টেশনে অনেক বেশি সময় দাড়াতে হচ্ছে মেট্রোকে।

এ দিকে রাস্তার অবস্থাও বেশ খারাপ। লাগাতার বৃষ্টিতে জল জমেছে অনেক বড় রাস্তায়ও। গাড়ি উল্টে প্রবল জানজট দেখা দিয়েছে বিদ্যাসাগর সেতুতে। এ দিকে বাইপাসেও বিভিন্ন জায়গায় জল জমে গিয়েছে। জল জমেছে চিংড়িঘাটার কাছেও। গাড়ি ধিরে চলছে এই অঞ্চলে। যে কারণে বাইপাস ও সল্টলেকের দিকে তৈরি হয়েছে জানজট।

আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে গতকাল রাত দশটা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত কলকাতায় বৃষ্টিপাতের পরিমান। দেখে নেওয়া যাক একনজরে।

মিলি মিটারের হিসেবে বৃষ্টি হয়েছে— মানিকতলা ১১০, বীরপাড়া ৭০, বেলগাছিয়া ৫৩, ধাপা ৮৬, তপসিয়া ৬৩, উল্টাডাঙ্গা ১১৬, পামারব্রিজ ৯৮, ঠনঠনিয়া ৯৭, বালিগঞ্জ ৩০, মোমিনপুর ৩৩.৭৫, চেতলা ১১, যোধপুর ১১, কালিঘাট ৩১.৪০, কামডহরী ১৪, দত্তবাগান ৫২, জিঞ্জিরাবাজার ১৬, বেহালা ১২.৪০।