এন-৯৫ মাস্ক ব্যবহার করবেন না, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তেমনই পরামর্শ

এন-৯৫ মাস্ক ব্যবহারএন-৯৫ মাস্ক ব্যবহার

জাস্ট দুনিয়া ডেস্ক: এন-৯৫ মাস্ক ব্যবহার করবেন না, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক তেমন পরামর্শই দিচ্ছে। নোভেল করোনাভাইরাস বাতাস-বাহিত হয়ে সংক্রমণ ঘটাতে সক্ষম বলে সম্প্রতি জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)। তার ভিত্তিতেই এই পরামর্শ বলে জানানো হয়েছে। সব রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলকে চিঠি দিয়ে ডিরেক্টর জেনারেল অব হেল্‌থ সার্ভিসেস (ডিজিএইচএস) রাজীব গর্গ জানিয়েছেন, এন-৯৫ মাস্কের ভাল্‌ভ রেসপিরেটর নাক ও মুখ থেকে বেরিয়ে আসা ভাইরাসকে সম্পূর্ণ রুখতে অক্ষম। ফলে, করোনা রুখতে এর কোনও কার্যকারীতা নেই। বরং করোনা ছড়ানোর ক্ষেত্রে এই ভাল্‌ভযুক্ত এন-৯৫ মাস্ক ব্যবহার যথেষ্ঠ ঝুঁকিপূর্ণ।

আমরা যে এন-৯৫ মাস্ক ব্যবহার করি, তার সামনের দিকে একটি ভাল্‌ভ থাকে। আসলে ওই ভাল্‌ভটির কারণে শ্বাস নেওয়ার সুবিধা হয়। একাংশের বিশেষজ্ঞদের মত, ওই ভাল্‌ভের ফিল্টার বাইরে থেকে বাতাস-বাহিত ভাইরাস ঢোকা আটকে দেয়। কিন্তু যিনি মাস্ক পরে আছেন। তিনি যদি নিজেই সংক্রমিত হন, তা হলে তাঁর নাক-মুখের ভাইরাস ভাল্‌ভের মধ্য দিয়ে বাইরে বেরিয়ে আসতে পারে। ফলে এন-৯৫ মাস্ক ব্যবহার করলে সংক্রমণের ঝুঁকি থাকছে।


করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সব খবর জানতে এখানে ক্লিক করুন

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের কর্তাদের মতে, নিম্নমানের বা নকল এন-৯৫ মাস্ক ব্যবহার বেড়ে গিয়েছে। কারণ বাজারে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী ওই নকল মাস্ক বিক্রি করছেন। যা সংক্রমণ রোখার বদলে ছড়াচ্ছে বেশি। নকল এন-৯৫ মাস্ক ব্যবহার রুখতেও কেন্দ্র ওই নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে বলে মনে করছেন অনেকে।

নাক-মুখ ঢাকা যায় এমন মাস্ক পরতে অনুরোধ করছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। কী ভাবে বাড়িতেই কাপড় দিয়ে মাস্ক তৈরি করা যায়, তার সবিস্তার বিবরণ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের ওয়েবসাইটে দেওয়া হয়েছে। তবে মাস্ক বানানোর আগে কাপড়টিকে ভাল করে গরম জলে ধুতে হবে। পুনর্ব্যবহার করতে হলে প্রতি বার গরম জলে নুন ফেলে মাস্কটিকে ফুটিয়ে নিতে হবে। মাস্কে যেন কোনও ছিদ্র না-থাকে। থাকলে দ্রুত সেই মাস্ক বাতিল করে দিতে হবে বলেও মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে।


(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)

মাস্ক পরা-খোলার নিয়ম

সাবানে হাত ধুয়ে মুখোশ পরতে হবে।

মুখোশে যেন নাক ও মুখ ঢাকা পড়ে।

উল্টো পিঠ ব্যবহার করা যাবে না।

অন্যের মুখোশ পরা যাবে না।

না-কেচে একই মুখোশ দু’বার পরা যাবে না।

মাস্কের সামনে হাত দেবেন না। কথা বলার সময় নামিয়ে দেবেন না। কোনও কারণে হাত দিতে গেলে আগে হাত ধুয়ে নেবেন। ধুতে হবে হাত দেওয়ার পরেও।

মাস্ক খোলার সময় প্রথমে পিছনের অংশ খুলে নেবেন, নাক-মুখের দিকের অংশে হাত দেবে না।