সুশান্ত সিং রাজপুত নিজের বাড়িতে আত্মহত্যা করলেন, উঠছে একগুচ্ছ প্রশ্ন

সুশান্ত সিং রাজপুতের বাড়িতে সিবিআই

জাস্ট দুনিয়া ডেস্ক: সুশান্ত সিং রাজপুত আর নেই, খবর ছড়িয়ে পড়তেই গোটা দেশের বিশ্বাস করতে অসুবিধে হচ্ছিল এটা কি আদৌ সত্যি না রটনা। কিন্তু কিছু সময়ের মধ্যেই নিশ্চিত হয়ে গেল সত্যিই রুপোলি পর্দার ধোনি, ছিছোরে ছেলেটা নিজের জীবন নিজেই কেড়ে নিয়েছেন রবিবারের সকালে। বলিউডের ঘোর এখনও কাটেনি। ৩৪ বছরের সফল, উদীয়মান এই অভিনেতা কেন আত্মহত্যার রাস্তা বেছে নিলেন। রবিবার সকাল ১০টায় নিজের ঘরের বাইরে এসে জুস, ওষুধ খেয়ে তিনি আবার নিজের ঘের ফিরে গিয়েছিলেন। দুপুরে বাড়ির কাজের লোক ডাকতে গেলে তিনি দরজা খোলেননি।

স্থানীয় পুলিশ জানাচ্ছে, তিনি হতাশায় ভুগছিলেন গত ছ’মাস ধরে। তিনি ডিপ্রেশনের ওষুধও খেতেন বলে জানা গিয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত কোনও সুইসাইড নোট পাওয়া যায়নি। সূত্রের খবর, কাছের কিছু বন্ধুদের সঙ্গে শনিবার রাতে তিনি বাড়িতে পার্টি করেছিলেন। যদিও এই খবরের সত্যতা জানা যায়নি। অনেক রাতে তিনি শুতে গিয়েছিলেন। যে কারণে খুব সকালে যে তিনি উঠবেন না সেটা জানতেন তাঁর বাড়ির কাজের লোকেরা।

দুপুরের দিকে বাড়ির কাজের লোক সুশান্তের শোওয়ার ঘরের দরজায় ধাক্কা দিলে কোনও উত্তর মেলেনি। তখন তিনি সুশান্তের বন্ধুদের ফোন করেন, তাঁর ম্যানেজার এসে দরজা ভাঙার চেষ্টা করলেও তা সম্ভব হয়নি। এর পর চাবিওয়ালাকে ডেকে দরজা খোলানো হয়। তার পরেই ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় সুশান্তকে। ওই ম্যানেজারই পুলিশকে ফোন করেন। পুলিশ সুশান্তের বাড়ি থেকে তাঁর চিকিৎসার ফাইলও পেয়েছে। ক্লিনিক্যাল ডিপ্রেশনে ভুগছিলেন তিনি।

বাড়ি থেকে সুশা‌ন্ত সিং রাজপুতের দেহ পোস্টমর্টেমের জন্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার পরই নিশ্চিত করে বলা যাবে তাঁর মৃত্যু পিছনে কী কাজ করছিল বা তাঁর মৃত্যুর সঠিক সময়।

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু খবরে ভেঙে পড়েছে গোটা বলিউড। অক্ষয় কুমার লিখেছেন, ‘‘আমি এই খবরে স্তম্ভিত এবং বাকরুদ্ধ…। আমি সুশান্তের ছিছোরে সিনেমাটি দেখার পর ছবির প্রডিউসর সাজিদকে বলেছিলাম, আমার মনে হচ্ছে এই ছবিতে যদি আমিও থাকতে পারতাম। অসাধারণ প্রতিভাবাণ অভিনেতা।’’

অজয় দেবগন লিখেছেন, ‘‘সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর খবর দুঃখজনক। বেদনাদায়ক ঘটনা। তাঁর পরিবারের প্রতি সহানুভূতি।’’ শাহরুখ খান লেখেন, ‘‘ও আমাকে খুব ভালবাসত..। আমি ওকে খুব মিস করব। ওর এনার্জি, উদ্যম আর সব সময় একগাল হাসি। খুবই দুঃখজনক, স্তম্ভিত।’’

সুশান্ত সিংয়ের প্রয়ানে দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহ, বিরাট কোহলি। এমএস ধোনির পক্ষ থেকে এখনও কোনও বার্তা পাওয়া যায়নি।

(বিনোদন জগতের আরও খবরের জন্য ক্লিক করুন এই লিঙ্ক)

কাইপোচে দিয়ে সিনেমা জগতে পা রেখেছিলেন সুশান্ত। তাঁকে সাফল্যের শিখরে নিয়ে গিয়েছিল, ‘‘ধোনি, আনটোল্ড স্টোরি’’। এমএস ধোনির জীবন নিয়ে তৈরি হওয়া এই সিনেমায় তাঁর অসাধারণ অভিনয়ের দক্ষতা মানুষের সামনে চলে এসেছিল।

এর পর সাফল্যই এসেছে তাঁর কেরিয়ারে। ‘‘কেদারনাথ’’ দারুণ সফল হয়েছিল। যেখানে তাঁর বিপরিতে ডেবিউ করেছিলেন সারা আলি খান। এর পর তিনি করেন ‘‘ছিছোরে’’। এই ছবির মাধ্যমে সমাজকে যে বার্তা দেওয়া হয়েছিল আজ যেন তাঁর জীবনে তেমনই কিছু ঘটে গেল। সেই সিনেমায় দেখানো হয়েছিল, পরীক্ষায় ভালো ফল করতে না পারার জন্য সিনেমায় সুশান্তের ছেলে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। সেখান থেকে তাঁকে ফিরিয়ে আনার গল্প। জীবনের ব্যর্থতা থেকে কী ভাবে সদর্থক দিক তুলে আনা যায়।

সমাজকে বার্তা দিয়ে তিনি নিজেই এ ভাবে চলে যাবেন তা কে ভেবেছিল। কিছুদিন আগেই সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার ইশা সালিয়ান আত্মহত্যা করেছিলেন। তার পর সুশান্ত লিখেছিলেন, ‘‘এটা সত্যিই ভয়ঙ্কর খবর। দিশার পরিবারের প্রতি আমার সমবেদনা।’’

সুশান্ত সিং রাজপুত তাঁর শেষ সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট করেছিলেন ৩ জুন ইনস্টাগ্রামে। সেখানে তাঁর মা-কে তিনি মনে করেছিলেন। তাঁর যখন ১৬ বছর বয়স তখন মারা যান তাঁর মা।

(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)