রাজ কুন্দ্রার উপর চিৎকার শিল্পার, ‘কী দরকার ছিল’ বলে কেঁদে ফেললেন

রাজ কুন্দ্রার উপর চিৎকার শিল্পার

জাস্ট দুনিয়া ডেস্ক: রাজ কুন্দ্রার উপর চিৎকার শিল্পার যেন আবেগের বিস্ফোরণই ঘটল এদিন। এতদিন চুপ করেই ছিলেন। বরং স্বামীর পাশেই দাঁড়িয়েছেন বার বার। কিন্তু নিজেকে আর নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলেন না। পর্ণ ভিডিও কাণ্ডে আপাতত জেলেই রয়েছেন রাজ কুন্দ্রা। শুক্রবার তাঁকে সঙ্গে নিয়েই মুম্বই পুলিশ পৌঁছয় তাঁর বাড়িতে। তখন বাড়িতেই ছিলেন অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টি। বাড়ি ভিতরে তদন্ত করার জন্যই মুম্বই পুলিশের এই পদক্ষেপ। তখনই অভিমানে, ক্ষোভে ফেঁটে পড়েন শিল্পা। তিনি চিৎকার করে রাজকে বলেন, ‘‘আমাদের সব কিছু আছে, এগুলো করার কী দরকার ছিল।’’

গত সপ্তাহে সোমবার গ্রেফতার হন রাজ কুন্দ্রা। অভিযোগ মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে তিনি পর্ণ ভিডিও পাবলিশ করেন। তার পরই তাঁকে ১৪ দিনের বিচারবিভাগীয় হেফাজতে রাখা হয়। পুলিশ শিল্পা শেট্টির বিবৃতিও নিয়েছে। যে বাংলোয় শিল্পা ও রাজ তাঁদের দুই সন্তানের সঙ্গে থাকেন সেখানে সার্চ অপারেশন চালায় পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, স্বামীকে দেখে ভেঙে পড়েন অভিনেত্রী। এবং তিনি তাঁদের পারিবারিক সম্মান নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি তাঁদের এনডোর্সমেন্ট বাতিলের কথাও বলেন। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে যেভাবে এই ঘটনার পর তাঁর সম্মান নষ্ট হয়েছে সেটা অস্বীকার করার কোনও জায়গা নেই। তিনি আবেগের পরিস্থিতিতে সেই সব বলে ফেলেন। তিনি এও বলেন, তিনি এই ঘটনার পর অনেক প্রজেক্ট থেকে বাদ পড়েছেন বা তিনি ছেড়ে দিয়েছেন। এর সঙ্গে তাঁদের আর্থিক ক্ষতির কথাও বলেন।

রাজ কুন্দ্রার সংস্থা ভিয়ান ইন্ডাস্ট্রিসের ডিরেক্টর পদে ছিলেন শিল্পা শেট্টি। কিন্তু গত বছর সেই পদ থেকে সরে দাঁড়ান তিনি। কেন তিনি সরে দাঁড়িয়েছিলেন তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ। তাঁর আর্থিক তথ্যও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যদিও পুলিশ জানিয়েছে, এখনও পর্যন্ত এই মামলায় শিল্পা শেট্টির কোনও যোগ পাওয়া যায়নি। তাঁরে দু’বার জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। প্রথমে পুলিশ স্টেশনে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে শুক্রবার তাঁদের বাড়িতে তদন্তের সময়। এমন কোনও তথ্যও পাওয়া যায়নি যে শিল্পা তাঁর স্বামীর এই কাণ্ড সম্পর্কে জানতেন।

পুলিশ জানিয়েছে, কোনও সাক্ষী এখনও পর্যন্ত শিল্পা শেট্টির নাম নেয়নি এই মামলায়। এবং কোনও কিছুর মধ্যেই তাঁর যুক্ত থাকার কোনও নথি পাওয়া যায়নি। পুলিশ জানিয়েছে, রাজ কুন্দ্রা, তাঁদের সঙ্গে সহযোগিতা করছেন না। গ্রেফতার হয়েছেন রাজের ঘনিষ্ঠ রায়ান থর্প। রাজের চার কর্মী সাক্ষীতে জানিয়েছেন, তাঁদের পর্ণ ক্লিপ ডিলিট করতে বলা হয়েছিল। তাঁরা এও জানিয়েছেন, ‘হটশট’ অ্যাপে  সেই সব ক্লিপ আপলোড করা হতো।

(প্রতিদিন নজর রাখুন জাস্ট দুনিয়ার খবরে)

(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)