কলকাতা কাঁপছে, তবু হাওয়া অফিসের দাবি শীত আসবে বড়দিনের আগেই

দক্ষিণবঙ্গে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস

জাস্ট দুনিয়া ডেস্ক: কলকাতা কাঁপছে ঠান্ডায়। হিমেল হাওয়ায় সে আজ হার মানাচ্ছে মানালিকেও।

কোনও কিছুতেই আজ বাগে আনা যাচ্ছে না ঠান্ডাকে। সোয়েটার, জ্যাকেট, মাফলার, উইন্ডচিটার ভেদ করে শরীর কাঁপিয়ে দিচ্ছে। সঙ্গে ঝিরঝিরে বৃষ্টি। কিন্তু আবহাওয়া দফতর বলছে, এখনও শীত আসেনি। এটা শীতের ঠান্ডা নয়!

তা হলে এই কাঁপুনি ধরানো ঠান্ডা কেন? হাওয়া অফিসের দাবি, ঘূর্ণিঝড় পেতাই-এর প্রভাবেই এই কাঁপুনি দশা শহরের। আছড়ে পড়ার পরেও তার প্রভাব কিছুটা রয়ে গিয়েছে। তার ফলে জলীয়বাষ্পপূর্ণ বাতাস ঢুকে পড়েছে উত্তর-পূর্ব ভারতের আকাশে। যা আটকে দিয়েছে উত্তুরে হাওয়া।

আজ পৌষের ২ তারিখ। হিসাব মতো শীত পড়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু, শহর কলকাতা-সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গের একটা বড় অংশ উত্তুরে হাওয়ায় কাঁপছে না। অন্ধ্রপ্রদেশে আছড়ে পড়া ঘূর্ণিঝড় পেতাইয়ের প্রভাবে বঙ্গোপসাগর থেকে আসা দখিনা বাতাসের সঙ্গে প্রচুর জলীয়বাষ্প ঢুকে পড়েছে। এর ফলে গত দু’দিন ধরে সূর্যের দেখা মিলছে না। যার জেরে তাপমাত্রা বাড়ছে না দিনের বেলা।

দক্ষিণেশ্বর স্কাইওয়াক চলা শুরু করে দিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে

আবহবিজ্ঞানীদের দাবি, কাশ্মীর থেকে নেমে আসা উত্তুরে হাওয়া শীত নিয়ে আসে পূর্ব ভারতে। আকাশ পরিষ্কার থাকলে খুব সহজেই সেই ঠান্ডা হাওয়া উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, ছত্তীসগঢ়, বিহার, ঝাড়খণ্ড হয়ে পৌঁছয় এই বাংলায়। কিন্তু পেতাইয়ের জেরে জলীয় বাষ্পপূর্ণ হাওয়া বঙ্গোপসাগর থেকে ঢুকছে। তার ফলে আটকে গিয়েছে উত্তুরে হাওয়া। চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে দখিনা হাওয়ার দাপট কমবে। জলীয়বাষ্পপূর্ণ বাতাসও ফিকে হয়ে যাবে। ফলে ঢুকে পড়বে উত্তুরে হাওয়া।

ঘূর্ণিঝড় গাজা আছড়ে পড়ল

মঙ্গলবার কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই সময়ে যে স্বাভাবিক তাপমাত্রা থাকার কথা, তার থেকে অন্তত ৫ ডিগ্রি কম। এ দিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৬.১ ডিগ্রি। স্বাভাবিকের থেকে যা ১ ডিগ্রি বেশি। আলিপুর আবহাওয়া দফতর আগেই জানিয়েছিল, মঙ্গলবার বিকেলের পর থেকে আবহাওয়ার কিছুটা উন্নতি হবে। সেই মতো বিকেল থেকে বৃষ্টি বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু হাওয়ার দাপট কমেনি।

বৃষ্টি কমার পর থেকেই পারদ আরও নেমে যাবে বলেও জানিয়েছে হাওয়া অফিস। বুধবার তাপমাত্রা আরও কমবে। পাশাপাশি তারা জানিয়েছে, এ সপ্তাহের শেষের দিকে রাজ্য জুড়েই জাঁকিয়ে ঠান্ডা পড়বে। সব কিছু ঠিক থাকলে বড় দিনের আগেই কনকনে শীতে কাঁপছে কলকাতা এবং রাজ্যের বিস্তীর্ণ অংশ।