নিম্নচাপের জের, দুপুর হতেই প্রবল বৃষ্টি, শহরে মৃত ১

নিম্নচাপের জেরফাইল চিত্র। সৌজন্যে স্কাইমেটওয়েদার

জাস্ট দুনিয়া ব্যুরো: নিম্নচাপের জের, আবার ঠান্ডা হল শহর তথা বাংলা। ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস ছিলই। আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েই দিয়েছিল মঙ্গলবার দুপুরের মধ্যেই কলকাতাসহ বিভিন্ন জেলায় ঝড়-বৃষ্টি হবে। মে মাসের শুরু থেকেই টা‌না গরমে কাটাতে হয়নি বাংলাকে। তবে বৃষ্টি কমলেই সেই ভ্যাপসা গরম তো আছেই। কিন্তু ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ট হয়ে ওঠার আগেই প্রকৃতি ঠান্ডা হয়েছে। দক্ষিণবঙ্গের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলাতেও বৃষ্টির সম্ভাবনা ছিল।

সোমবার রাজ্যে একটা ভ্যাপসা গরমের পরিবেশ তৈরি হয়েছিল। কড়া রোদ আর তেমনই গরম। সোমবারও ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকলেও তেমন কিছু হয়নি। তবে মঙ্গলবার আবার স্বস্তির আবহাওয়া। সকাল থেকেই কড়া রোদ থাকলেও দিন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই ঝড় ওঠে। কিছুক্ষণ পরই বৃষ্টি শুরু হয় শহর ও শহরতলীতে। মালদহে শিলা বৃষ্টি।

কলকাতা, দুই ২৪ পরগনা, বীরভূম, পশ্চিম বর্ধমানে ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা জানিয়েছিল আবহাওয়া দফতর। তার ইঙ্গিত দিতে শুরু করে দিল প্রকৃতি। বৃষ্টির অপেক্ষাও শেষ হল গোটা বাংলায়। উত্তরবঙ্গেও বেশ কয়েকদিন ধরে বেশ গরম। পাহাড়ের পাদদেশ হলে কী হবে গরমে শিলিগুড়ির গরম কলকাতাকেও টক্কর দিতে পারে। তাই সেখানেও বৃষ্টির জন্য হাপিত্যেশ ছিল। হাওয়া অফিসের খবর মালদা ও দুই দিনাজপুরে বৃষ্টির সম্ভাবনা ছিল। একদম কাটায় কাটায় মিলিয়ে দিল প্রকৃতি। তার রেশ কিছুটা হলেও পড়বে আশপাশে।

হাওয়ার গতিবেগ খুব বেশি না হলেও ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার থাকবে। আবহাওয়া দফতর জানাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের উপর একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা সৃষ্টি হয়েছে। তার সঙ্গে রয়েছে মেঘের ঘনঘটা। এই দু’য়ের কারণেই মাঝে মাঝে ঝড়-বৃষ্টির পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে। রবিবারের পর আবার মঙ্গলবার।

গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতার তাপমাত্র পৌঁছেছে ৩৩.৬ ডিগ্রিতে। যা স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি কম। তবে বাতাসে আদ্রতার পরিমাণ ছিল অত্যন্ত বেশি। যার ফল ভ্যাপসা একটা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল সঙ্গে ঘাম। কিন্তু মঙ্গলবার দুপুর গড়াতেই বদলে গেল পুরো পরিস্থিতি।

(প্রতিদিন নজর রাখুন জাস্ট দুনিয়ার খবরে)

(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)