দেড় লাখের পথে রাজ্যে সংক্রমণ, আজও আক্রান্ত ৩ হাজারের কাছাকাছি

করোনায় রেকর্ড রাজ্যে

জাস্ট দুনিয়া ব্যুরো: দেড় লাখের পথে রাজ্যে সংক্রমণ, সোমবারও আক্রান্ত ৩ হাজারের কাছাকাছি। করোনায় এক দিনে মৃত্যু হল ৫৭ জনের। সুস্থতার হারও বাড়ছে পাল্লা দিয়ে। সুস্থতার হার বেড়ে ৭৮.৪৬ শতাংশ। এক দিনে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ২ হাজার ৯৬৭ জন।

আক্রান্তের সংখ্যা সব মিলিয়ে ১ লাখ ৪১ হাজার ৮৩৭। সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যা এই মুহূর্তে ২৭ হাজার ৬৯৪। সব মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত রাজ্যে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ২ হাজার ৮৫১। সোমবার প্রকাশিত রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিনে তেমনটাই জানানো হয়েছে।


করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সব খবর জানতে এখানে ক্লিক করুন

গত ২৪ ঘণ্টাতে যে ৫৭ জন মারা গিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে কলকাতার ১৩ জন বাসিন্দা রয়েছেন। উত্তর ২৪ পরগনায় ১২, হাওড়ায় ৯, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৬, হুগলিতে ৪, পশ্চিম বর্ধমানে ১, পূর্ব বর্ধমানে ১, পূর্ব মেদিনীপুরে ১, পশ্চিম মেদিনীপুরে ২, মুর্শিদাবাদে ১, মালদহে ১, দক্ষিণ দিনাজপুরে ২, জলপাইগুড়িতে ১, কোচবিহারে ১, আলিপুরদুয়ারে ১ এবং দার্জিলিঙে ১ জন করে করোনা আক্রান্ত মারা গিয়েছেন। সংক্রমণ বেড়েই চলেছে রাজ্যে, তাই প্রশাসন অত্যন্ত কড়া ভাবে বিভিন্ন জায়গায় ফের লকডাউন কার্যকর করেছে। নবান্নের নির্দেশে, রাজ্যে আগামী ৩১ অগস্ট পর্যন্ত লকডাউন কার্যকর থাকবে। সব মিলিয়ে ৬ দিন সম্পূর্ণ লকডাউনও হবে চলতি মাসে।

দেড় লাখের পথে রাজ্যে সংক্রমণ, তা-ও রাজ্যে করোনায় সুস্থতার হার বেড়ে ৭৮.৪৬ শতাংশ, গত কয়েক দিনে এই হার বেশ খানিকটা কমে গিয়েছিল। এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ১ লাখ ১১ হাজার ২৯২ জন। তার মধ্যে গত ২৪ ঘন্টাতেই ছাড়া পেয়েছেন ৩ হাজার ২৮৫ জন। কলকাতাতেই গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৬৫১ জন।

সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যাও প্রতি দিন বাড়ছে রাজ্যে। এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে প্রায় সাড়ে ১ লাখ ১১ হাজার মানুষ ছাড়া পেলেও এই মুহূর্তে সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যা ২৭ হাজার ৬৯৪। তার মধ্যে কলকাতারই রয়েছেন ৬ হাজার ২৩৮ জন। স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী, রাজ্যে এখনও পর্যন্ত কোভিড টেস্ট হয়েছে মোট ১৪ লক্ষ ৫১ হাজার ৬১৫টি। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৫ হাজার ৫৯টি টেস্ট হয়েছে। এ রাজ্যে ৫৮২টি সরকারি কোয়রান্টিন কেন্দ্র রয়েছে। সরকারি কোয়রান্টিন কেন্দ্র থেকে এখনও পর্যন্ত মোট ১ লাখ ৬ হাজার ৯০৮ জনকে ছাড়া হয়েছে। পাশাপাশি, ওই কেন্দ্রগুলিতে এখনও ২ হাজার ৬১০ জন রয়েছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য দফতর।


(জাস্ট দুনিয়ার ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন)