ধর্ষণের পর যৌনাঙ্গে রড! দিল্লি ফিরে এল বালুরঘাটে

চোপড়া ধর্ষণ ও খুন

শনিবার সন্ধ্যা থেকে রবিবার বিকেল। গণধর্ষিত হওয়ার পর প্রায় ১৮ ঘণ্টা রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রইলেন এক যুবতী। অথচ তাঁকে কেউ দেখতে পায়নি, এমনটা নয়। আসলে, ভবঘুরে ভেবে কেউ তাঁর পড়ে থাকাটাকে গুরুত্বই দেয়নি। পরে তাঁকে উদ্ধার করে মালদহ মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করা হয়। সেখানে ওই যুবতীর অস্ত্রোপচার হয়। আপাতত তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

দক্ষিণ দিনাজপুরের কুশমণ্ডির ওই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত এক জন গ্রেফতার হয়েছে। তবে, এলাকায় দোষীদের সকলকে গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, কুশমণ্ডির দেহাবন্ধ হাটপাড়ায় ওই যুবতী একাই থাকতেন। প্রতিবেশীদের সাহায্যেই দিন কাটাতেন। শনিবার বিকেলে তিনি স্থানীয় পতিরাজ এলাকায় গিয়েছিলেন শিবরাত্রির মেলায়। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, সন্ধ্যাবেলা তাঁকে জোর করে একটি সেতুর নীচে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে অনেকে মিলে তাঁকে ধর্ষণ করে। শুধু তাই নয়, গণধর্ষণের পর ওই যুবতীর যৌনাঙ্গে ধাতব কিছু ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। এর পর ওই সেতুর নীচেই পড়ে ছিলেন রক্তাক্ত ওই যুবতী।

ও ভাবে অনেক ক্ষণ পড়ে থাকতে দেখে রবিবার বিকেলে স্থানীয় কৃষকদের কয়েক জন তাঁকে উদ্ধার করেন। তার পর অনেকগুলে হাসপাতাল ঘুরে শেষমেশ তাঁর ঠাঁই হয় মালদহ মেডিক্যাল কলেজে।