দিব্যেন্দু পালিত ও পিনাকী ঠাকুর প্রয়াত, কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে জোড়া ধাক্কা বাংলা সাহিত্য জগতে

দিব্যেন্দু পালিত ও পিনাকী ঠাকুর

জাস্ট দুনিয়া ব্যুরো: দিব্যেন্দু পালিত ও পিনাকী ঠাকুর , বাংলা সাহিত্য জগতে একসঙ্গে জোড়া নক্ষত্রপতন ঘটে গেল বৃহস্পতিবার। মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়লেন সাহিত্যিক দিব্যেন্দু পালিত আর কবি পিনাকী ঠাকুর। যার ফলে বাংলা সাহিত্যের জগতে নেমে এসেছে একরাশ হতাশা। দু’দিন আগেই চোখ বুজেছিলেন পরিচালক মৃণাল সেন। সেই শোক এখনও কাটিয়ে উঠতে পারেনি বাংলা তার মধ্যেই বড় ধাক্কা খেল বাংলার সংস্কৃতি জগৎ।

১৯৩৯-এর ৫ মার্চ বিহারের ভাগলপুরে জন্ম হয়েছিল দিব্যেন্দু পালিতের। সেখানেই স্কুল, কলেজের পাঠ চুকিয়ে কলকাতায় পাড়ি দিয়েছিলেন দিব্যেন্দু পালিত। অনেক কষ্টের সময় কাটিয়েছেন। দেখেছেন অভাব। দিনের পর দিন কষ্টের সময় কাটিয়েছেন। না খেলে রাত কেটেছে শিয়ালদহ স্টেশনে। লেখালিখি করতেন সেই ছোটবেলা থেকেই। অভাব যে সেটা কেড়ে নিতে পারেনি তার প্রমাণ তো আজকের দিব্যেন্দু পালিত। বুধবার শ্বাসকষ্ট হওয়ায় যাদবপুরের এক বেসরকারি হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হলে বৃহস্পতিবার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় এই সাহিত্যিকের।

একই দিনে দিব্যেন্দু পালিতের কয়েক ঘণ্টা আগেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছেন কবি পিনাকী ঠাকুর। বড্ড কম বয়েসে চলে গেলেন এই কবি। এসএসকেএম-এ ৫৯ বছর বয়সে চলে গেলেন পিনাকী ঠাকুর। অনেক চেষ্টার পরও তাঁকে বাঁচাতে পারেননি ডাক্তাররা। তিনি সেলিব্রাল ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়েছিলেন ২১ ডিসেম্বর। তার পর থেকেই বিভিন্ন হাসপাতাল ঘুরে ভর্তি হয়েছিলেন এসএসকেএম-এ।

প্রয়াত মৃণাল সেন, বাংলা সিনেমায় একটা যুগের অবসান

পড়াশুনো করে দিব্যেন্দু পালিত ১৯৬১ সালে সেই সময়ের ইংরেজি দৈনিক হিন্দুস্তান স্ট্যান্ডার্ড পত্রিকায় চাকরিতে যোগ দিয়েছিলেন। বিজ্ঞাপনের কাজে যোগ দিয়ে যোগসূত্র স্থাপন হয় সঙ্গে। পরে সেখান থেকে আনন্দবাজারের সম্পাদকীয় বিভাগে যোগ দেন। তার আগেই অবশ্য একাধিক লেখা ছাপা হয়ে গিয়েছে তাঁর। এরকমই নানা ওঠাপড়া নিয়ে উত্থান দিব্যেন্দু পালিতের।

কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী মারা গেলেন

তাঁর প্রথম গল্প ছাপা হয়েছিল তাঁর ১৬ বছর বয়সে আনন্দবাজার পত্রিকায়। তখন তিনি ভাগলপুরেই থাকতেন। গল্প ছিল ‘ছন্দপতন’। দ্বিতীয় গল্প ‘নিয়ম’ দেশ পত্রিকায় ছাপা হয়। তখনও তিনি থাকতেন ভাগলপুরে। প্রথম বই বের হয় ২০ বছর বয়সে। দিব্যন্দু পালিতের নাম জেনে গিয়েছে ততদিনে সাহিত্য জগতের মানুষরা। তৈরি হচ্ছে তাঁর পাঠক। লিখেছেন প্রচুর ছোট গল্প। তাঁর ঝুলিতে রয়েছে সাহিত্য জগতের প্রায় সব পুরস্কার। তাঁর একাধিক গল্প সিনেমার রূপ পেয়েছে।

এ দিক খুব কম বয়সে চলে গেলেন পিনাকী ঠাকুর। ১৯৫৯-এর ২১ এপ্রিল  বাঁশবেড়িয়ায় জন্ম হয় কবি পিনাকী ঠাকুরের। শেষকৃত্য হল সেখানেই। তাঁর একাধিক কবিতা ছুঁয়ে গিয়েছে তাঁর পাঠকদের মন। ন’য়ের দশকের কবিদের মধ্যে তিনিও ছিলেন একজন। ‘একদিন অশরীরী’ কাব্য গ্রন্থের মাধ্যমে তিনি জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। লিটল ম্যাগাজিনে তাঁর লেখা পড়ে সেই প্রজন্মের ছেলে-মেয়েরা বড় হয়ে উঠেছেন। পেয়েছেন আনন্দ পুরস্কার, অ্যাকাডেমি, কৃত্তিবাস পুরস্কার।

Be the first to comment on "দিব্যেন্দু পালিত ও পিনাকী ঠাকুর প্রয়াত, কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে জোড়া ধাক্কা বাংলা সাহিত্য জগতে"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*